/
/
/
আমেরিকা ও কানাডায় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র-এর দরজা বন্ধ: দ্য প্রিন্ট
আমেরিকা ও কানাডায় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র-এর দরজা বন্ধ: দ্য প্রিন্ট
Relaks News 24
আপলোড সময় : 8 hours আগে
আমেরিকা ও কানাডায় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র-এর দরজা বন্ধ: দ্য প্রিন্ট
Print Friendly, PDF & Email

বহিষ্কৃত কর্মকর্তারা সান ফ্রান্সিসকোতে র-এর স্টেশন প্রধান এবং লন্ডনে সংস্থার অপারেশনের দ্বিতীয় ব্যক্তি ছিলেন বলে জানা গেছে। অটোয়াতে সংস্থার স্টেশন প্রধান পবন রাইকে প্রকাশ্যে বহিষ্কার করে কানাডা।

রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইং বা র-এর দুই জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাকে গত গ্রীষ্মের শুরুতে দেশ ছাড়তে বলেছিল আমেরিকা। গুরপতবন্ত সিং পান্নুনকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে আমেরিকার আদালতে ফৌজদারি অভিযোগ দায়েরের আগেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। খালিস্তানপন্থী শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হত্যার ষড়যন্ত্রের অভিযোগে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানা গেছে। গোয়েন্দা সূত্রের তথ্যের ভিত্তিতে ভারতীয় অনলাইন সংবাদমাধ্যম দ্য প্রিন্টে এ বিষয়ে প্রতিবেদন লিখেছেন প্রবীন স্বামী। লেখাটির ক্রেডিট লাইন দেওয়া হয়েছে লন্ডন, অর্থাৎ লেখাটি লন্ডন থেকে লিখে পাঠানো হয়েছে।

এমনকি আমেরিকার রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র-এর স্টেশন প্রধানকেও আর নতুন করে নিয়োগের অনুমতি দেওয়া হয়নি বলে ওই প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে। জানা গেছে, বহিষ্কৃত কর্মকর্তারা ধারাবাহিকভাবে এমন কিছু কাজ করেছিলেন, যা আমেরিকা, কানাডা ও যুক্তরাজ্যের ক্ষোভের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এতে তিনটি দেশ এই মত পোষণ করে যে, তাদের দেশে র-এর কার্যক্রম পরিচালনার জন্য যে অলিখিত নিয়ম রয়েছে, তা লঙ্ঘন করা হচ্ছে।

একটি সূত্রের বরাত দিয়ে দ্য প্রিন্ট জানায়, বহিষ্কৃত দুই কর্মকর্তা হলেন—আমেরিকার সান ফ্রান্সিসকোতে র-এর স্টেশন প্রধান এবং লন্ডনে সংস্থাটির অপারেশনের দ্বিতীয় ব্যক্তি। এই কর্মকর্তারা পরিচয় গোপন করে কাজ করছিলেন না। দেশগুলো তাঁদের আসল পরিচয় জানত। এই কর্মকর্তারা ইন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিসে (আইপিএস) জ্যেষ্ঠ ও মধ্যম স্তরের কর্মকর্তা। দ্য প্রিন্ট তাঁদের নাম গোপন রেখেছে। কারণ, তাঁরা উভয়ই র-এর চাকরিতে বহাল আছেন।

এ ছাড়া ভারত সরকার ওয়াশিংটন ডিসিতে র-এর স্টেশন প্রধানের স্থলাভিষিক্ত হিসেবে একজন কর্মকর্তাকে পাঠানোর অনুমতি চেয়ে প্রত্যাখ্যাত হয়েছিল। তিনি এ বছরের শুরুতে দেশে ফিরেছিলেন। এই নতুন কর্মকর্তা দীর্ঘদিন ধরে র-এর সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছেন। এবং র-এর সাবেক প্রধান সামন্ত গোয়েলের নির্ধারিত অবসরের (৩০ জুন) আগে তাঁর দায়িত্ব নেওয়ার কথা ছিল।

সান ফ্রান্সিসকো ও ওয়াশিংটন ডিসি-তে র-এর স্টেশনগুলো বন্ধ করে দেওয়া, অটোয়াতে সংস্থার স্টেশনপ্রধান পবন রাইকে প্রকাশ্যে বহিষ্কার—এই গোয়েন্দা সংস্থার জন্য অভূতপূর্ব। ৫৫ বছর আগে ১৯৬৮ সালে প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর আমলে র-এর প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত এ ধরনের ঘটনা এই প্রথম।

মার্কিন আইনজীবীরা আদালতে দাবি করেছেন—খালিস্তানপন্থী এক আইনজীবীকে হত্যার জন্য নিখিল গুপ্ত নামে এক ভারতীয় মাদক ব্যবসায়ীকে দেড় লাখ ডলার পর্যন্ত দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার এক কর্মকর্তা। ওই কর্মকর্তার নাম এখনো আমেরিকা প্রকাশ করেনি। অভিযুক্ত ব্যক্তি বা ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার নাম উল্লেখ না করা হলেও সরকারি সূত্রগুলো দ্য প্রিন্টকে বলেছে, মার্কিন কর্মকর্তারা নয়াদিল্লিতে আলাপচারিতায় বলেছেন, ‘র’ শীর্ষস্থানীয় খালিস্তানপন্থী আইনজীবী গুরপতবন্ত সিং পান্নুনকে হত্যার ষড়যন্ত্র করেছিল।

গত জুন মাসে কানাডায় খালিস্তানপন্থী হরদীপ সিং নিজ্জারকে হত্যার পর মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান ও কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (সিআইএ) পরিচালক উইলিয়াম বার্নস বিষয়টি নিয়ে তাঁদের ভারতীয় সতীর্থদের সাথে বৈঠক করেন। এই বৈঠকে তাঁরা ওই কর্মকর্তাদের জবাবদিহির আওতায় আনার দাবি জানান বলে ওয়াশিংটন পোস্ট লিখেছে।

ভারতীয় সরকারি সূত্রগুলো দ্য প্রিন্টকে বলেছে, সান ফ্রান্সিসকোতে র-এর কর্মকর্তাকে বহিষ্কারের মাধ্যমে আমেরিকা এই বার্তা দিয়েছে যে, ভারত যদি পশ্চিমা দেশে এমন আক্রমণাত্মক কার্যক্রম চালিয়ে যায়, তাহলে তারা ভারতীয় গোয়েন্দাদের কোনো ধরনের সহযোগিতা করবে না। মামলার সাথে সংশ্লিষ্ট এক ভারতীয় গোয়েন্দা কর্মকর্তা দ্য প্রিন্টকে এ কথা বলেছেন।

এমনকি যুক্তরাজ্যের জাতীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তারা লন্ডন থেকে র-এর একজন কর্মকর্তাকে অপসারণের জন্য কোনো কারণ পর্যন্ত জানায়নি। ওই কর্মকর্তা সেখানে র-এর দ্বিতীয় ব্যক্তি ছিলেন। এ কথা যুক্তরাজ্য সরকারও জানত। একাধিক সূত্রের মতে, ব্রিটিশ গোয়েন্দারা শিখদের ওই দেশে বিভিন্ন কার্যকলাপ নিয়ে র-এর ক্রমবর্ধমান সম্পৃক্ততায় বেশ কয়েকবার অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছিলেন। বিশেষ করে পাঞ্জাব ক্যাডারের আইপিএস অফিসার সাবেক ‘র’–প্রধান সামন্ত গোয়েলের নেতৃত্বে। গোয়েল র-তে যোগদানের আগে খালিস্তানপন্থীদের বিরুদ্ধে অভিযানে যুক্ত ছিলেন।

র-এর এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছেন, ‘এ ব্যাপারে প্রচলিত ধারাটি হলো—অতি উৎসাহী গোয়েন্দা কর্মকর্তাকে সংশ্লিষ্ট দেশের গোয়েন্দারা ডেকে পাঠাবেন এবং তাঁকে “অগ্রহণযোগ্য কাজ” না করার জন্য সতর্ক করে দেবেন। এ ক্ষেত্রে হালকাভাবে তাঁকে এ কথাও স্মরণ করিয়ে দিতে পারেন যে, তিনি কিন্তু নজরদারিতে আছেন। যেমনটা আমাদের দেশে অন্য দেশের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা থাকেন। আর যদি সমস্যা সত্যিই বাড়তে থাকে, তাহলে রাষ্ট্রদূত বা হাইকমিশনার জড়িত হতে পারেন। তবে বিষয়গুলো সাধারণত এত দূর গড়ায় না।’

গুপ্তচর বনাম গুপ্তচর-নাটক
পশ্চিমের যে দেশগুলোতে র-এর কর্মকর্তারা পরিচয় প্রকাশ করে কাজ করেন, সেখানে সংঘাত নতুন কিছু নয়। র-এর অপারেশন নিয়ে এক জার্মানিতেই চারটি মামলা হয়েছে। জার্মানি একমাত্র দেশ, যেখানে ঐতিহাসিক পরিস্থিতির কারণে দুটি স্টেশন পরিচালনা করে এই ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা। ২০২০ সালে, জার্মানি ভারতকে ভারতীয় রাজস্ব পরিষেবা থেকে প্রেষণে বা ডেপুটেশনে র-এ কর্মরত একজন কর্মকর্তাকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেয়। পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে ভারতও জার্মান গোয়েন্দা কর্মকর্তা উয়ে কেহমকে বহিষ্কার করে।

একটি মামলায় খালিস্তান সমর্থকদের ওপর গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে আরেক রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী বলভীর সিংকে এক বছরের কারাদণ্ড এবং ২ হাজার ৪০০ ইউরো জরিমানা করে জার্মানির আদালত। এর আগে, ফ্রাঙ্কফুর্টের একটি আদালত জার্মানিতে খালিস্তানপন্থী অনলাইন নিউজ প্ল্যাটফর্মের পরিচালনাকারী সাংবাদিক মনমোহন সিংকে র-এর ফ্রাঙ্কফুর্ট স্টেশনের পক্ষ থেকে কাশ্মীরি ও শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ওপর গুপ্তচরবৃত্তির জন্য ১৮ মাসের সাজা দেয়। এরও আগে, ২০১৫ সালে নর্থ রাইন-ওয়েস্টফালিয়ায় কর্মরত এক জার্মান অভিবাসন কর্মকর্তার কাছে সন্দেহভাজন খালিস্তান কর্মী-সমর্থকদের তথ্য কিনতে চেয়েছিলেন র-এর এক এজেন্ট। এ জন্য বিচারও হয়েছিল তাঁর।

এদিকে আটজন ভারতীয় নাগরিক এখন ইসরায়েলের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে কাতারে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন। এরা সবাই ভারতীয় নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা। আরও অনেক ভারতীয় নাগরিক মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে গুপ্তচরবৃত্তির জন্য বন্দী রয়েছেন। গোয়েল নিজেই ২০১২ সাল থেকে যুক্তরাজ্যের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সাথে সংঘাতে জড়িয়ে পড়েন। তখন তিনি র-এর লন্ডন স্টেশনের প্রধানের দায়িত্বে ছিলেন। ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা এমআই ফাইভ ও এমআই সিক্স তখন দাবি করে—গোয়েল গুপ্তচরবৃত্তির জন্য ইতিমধ্যেই খালিস্তানপন্থী ব্যক্তিদের নিয়োগ করতে চাইছিলেন। র-এর এই প্রাক্তন কর্মকর্তার কারণে দুই দেশের মধ্যে পর্দার আড়ালে অনেক কূটনৈতিক নাটক হয়ে গেছে। যুক্তরাজ্যের অভিযোগ ছিল, গোয়েল খালিস্তান-সংক্রান্ত বিষয়ে নাক গলাতে লন্ডনে নিজের দপ্তরকে ব্যবহার করছিলেন। তারপরও অতীতে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি, যেখানে পশ্চিমা দেশে ‘র’ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

নিউজটি করেছেন : মাসুদ রানা
{{ reviewsTotal }}{{ options.labels.singularReviewCountLabel }}
{{ reviewsTotal }}{{ options.labels.pluralReviewCountLabel }}
{{ options.labels.newReviewButton }}
{{ userData.canReview.message }}

এ জাতীয় আরো খবর

আফ্রিকার ৬ দেশকে বিনামূল্যে শস্য পাঠাল রাশিয়া
আফ্রিকার ৬ দেশকে বিনামূল্যে শস্য পাঠাল রাশিয়া
হঠাৎ ধনী হলে মানুষ ভাবে ইংরেজিতে কথা বলা আধুনিকতা: প্রধানমন্ত্রী এম রানা,ঢাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, হঠাৎ টাকা-পয়সার মালিক হয়ে যাওয়া কিছু মানুষ মনে করে ইংরেজিতে কথা বলতে পারা আধুনিকতা। স্মার্ট হতে হলে শুধুমাত্র একটা ভাষা শিখতে হবে এবং সে ভাষায় কথা বলতে হবে আমি সেটা বিশ্বাস করি না। নিজের ভাষা শিখে অন্যের ভাষাও শেখা যায়। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৪ উদযাপন উপলক্ষ্যে চারদিনের কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। সরকারপ্রধান বলেন, স্মার্ট হতে গেলে ইংরেজিতে কথা বলতে হবে তা নয়। তবে কর্মক্ষেত্রের প্রয়োজনে অনেক ভাষা শেখা দরকার। শিক্ষার মাধ্যমটা মাতৃভাষায় হওয়া উচিত, এর সঙ্গে শিশুদের আরও দু-তিনটি ভাষা শেখানোর দরকার। বাংলাকে সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যেতে হবে। বিশ্বায়নের এই যুগে একাধিক ভাষা জানলে আত্মবিশ্বাস বাড়বে। মাতৃভাষা বাংলাকে রক্ষায় যারা আত্মত্যাগ করেছে, তাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যের শুরুতে শ্রদ্ধা জানান। বলেছেন, বাঙালি জাতি নিজের মাতৃভাষাকে মর্যাদা দেয়ার জন্য মহান আত্মত্যাগ করেছিলেন। বাঙালি জাতি রক্ত দিয়ে ভাষার মর্যাদা দিয়ে গেছে। তিনি আরও বলেন, নিজের ভাষা রক্ষা করার মধ্য দিয়ে একটা জাতি উন্নত জীবন পেতে পারে। আর আমাদের মাতৃভাষায় কথা বলার অধিকারটুকুও কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। এছাড়া একটা বিজাতীয় ভাষা আমাদের ওপর চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হয়। শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের দুর্ভাগ্য যে এখানে ইতিহাস বিকৃত করা হয়। পঁচাত্তরের পর ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছিল। এমন সময় এসেছিল, আমরা যে বিজয়ী জাতি তাই ভুলিয়ে দেয়া হয়েছিল। হঠাৎ ধনী হলে মানুষ ভাবে ইংরেজিতে কথা বলা আধুনিকতা: প্রধানমন্ত্রী
হঠাৎ ধনী হলে মানুষ ভাবে ইংরেজিতে কথা বলা আধুনিকতা:...
শার্শার বাগআঁচড়া কেন্দ্রিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত
শার্শার বাগআঁচড়া কেন্দ্রিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে মহা...
ইউক্রেনের দোনেৎসকে মিসাইল হামলায় অন্তত ৬০ রুশ সেনা নিহত
ইউক্রেনের দোনেৎসকে মিসাইল হামলায় অন্তত ৬০ রুশ সেনা...
শার্শার বেনাপোলে মাতৃভাষা দিবসে দুই বাংলার মিলনমেলা
শার্শার বেনাপোলে মাতৃভাষা দিবসে দুই বাংলার মিলনমেল...
শেরপুরের শ্রীবরদীতে বাস-ট্রলির মুখোমুখি সংঘর্ষে ট্রলির হেলপার নিহত 
শেরপুরের শ্রীবরদীতে বাস-ট্রলির মুখোমুখি সংঘর্ষে ট্...
দারুল নাজাত হাতেখঁড়ি শিশু একাডেমির আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন
দারুল নাজাত হাতেখঁড়ি শিশু একাডেমির আন্তর্জাতিক মাত...
Relaks News 24 (7)
শেরপুরে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস...
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস -২০২৪ উপলক্ষ্যে সকল শহিদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস -২০২৪ উপলক্ষ্যে স...
হাসিনার নেতৃত্বে সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ তুলে ফেলবো: কাদের
হাসিনার নেতৃত্বে সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ তুলে ফেল...
আফ্রিকার ৬ দেশকে বিনামূল্যে শস্য পাঠাল রাশিয়া
আফ্রিকার ৬ দেশকে বিনামূল্যে শস্য পাঠাল রাশিয়া
হঠাৎ ধনী হলে মানুষ ভাবে ইংরেজিতে কথা বলা আধুনিকতা: প্রধানমন্ত্রী এম রানা,ঢাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, হঠাৎ টাকা-পয়সার মালিক হয়ে যাওয়া কিছু মানুষ মনে করে ইংরেজিতে কথা বলতে পারা আধুনিকতা। স্মার্ট হতে হলে শুধুমাত্র একটা ভাষা শিখতে হবে এবং সে ভাষায় কথা বলতে হবে আমি সেটা বিশ্বাস করি না। নিজের ভাষা শিখে অন্যের ভাষাও শেখা যায়। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০২৪ উদযাপন উপলক্ষ্যে চারদিনের কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। সরকারপ্রধান বলেন, স্মার্ট হতে গেলে ইংরেজিতে কথা বলতে হবে তা নয়। তবে কর্মক্ষেত্রের প্রয়োজনে অনেক ভাষা শেখা দরকার। শিক্ষার মাধ্যমটা মাতৃভাষায় হওয়া উচিত, এর সঙ্গে শিশুদের আরও দু-তিনটি ভাষা শেখানোর দরকার। বাংলাকে সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যেতে হবে। বিশ্বায়নের এই যুগে একাধিক ভাষা জানলে আত্মবিশ্বাস বাড়বে। মাতৃভাষা বাংলাকে রক্ষায় যারা আত্মত্যাগ করেছে, তাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যের শুরুতে শ্রদ্ধা জানান। বলেছেন, বাঙালি জাতি নিজের মাতৃভাষাকে মর্যাদা দেয়ার জন্য মহান আত্মত্যাগ করেছিলেন। বাঙালি জাতি রক্ত দিয়ে ভাষার মর্যাদা দিয়ে গেছে। তিনি আরও বলেন, নিজের ভাষা রক্ষা করার মধ্য দিয়ে একটা জাতি উন্নত জীবন পেতে পারে। আর আমাদের মাতৃভাষায় কথা বলার অধিকারটুকুও কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। এছাড়া একটা বিজাতীয় ভাষা আমাদের ওপর চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হয়। শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের দুর্ভাগ্য যে এখানে ইতিহাস বিকৃত করা হয়। পঁচাত্তরের পর ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছিল। এমন সময় এসেছিল, আমরা যে বিজয়ী জাতি তাই ভুলিয়ে দেয়া হয়েছিল। হঠাৎ ধনী হলে মানুষ ভাবে ইংরেজিতে কথা বলা আধুনিকতা: প্রধানমন্ত্রী
হঠাৎ ধনী হলে মানুষ ভাবে ইংরেজিতে কথা বলা আধুনিকতা:...
শার্শার বাগআঁচড়া কেন্দ্রিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত
শার্শার বাগআঁচড়া কেন্দ্রিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে মহা...
ইউক্রেনের দোনেৎসকে মিসাইল হামলায় অন্তত ৬০ রুশ সেনা নিহত
ইউক্রেনের দোনেৎসকে মিসাইল হামলায় অন্তত ৬০ রুশ সেনা...
শার্শার বেনাপোলে মাতৃভাষা দিবসে দুই বাংলার মিলনমেলা
শার্শার বেনাপোলে মাতৃভাষা দিবসে দুই বাংলার মিলনমেল...
শেরপুরের শ্রীবরদীতে বাস-ট্রলির মুখোমুখি সংঘর্ষে ট্রলির হেলপার নিহত 
শেরপুরের শ্রীবরদীতে বাস-ট্রলির মুখোমুখি সংঘর্ষে ট্...

Log in

Not registered? Join us FREE